আলোর সন্ধানী AloR Sondhani

"আশ্চর্যজনক পৃথিবীর নবগতদের জন্য আলোর সন্ধানী। যা দেবে আলোর সন্ধান।"

ফুসফুস ক্যান্সারের এই লক্ষণগুলো অবহেলা করছেন না তো?

 

মরণব্যাধি ক্যান্সারে মৃত্যুর সংখ্যা দিন দিন বেড়ে চলছে। আমাদের ভুল জীবনযাপন ও অস্বাস্থ্যকর অভ্যাসগুলো দায়ী এই ক্যন্সারে আক্রান্ত হওয়ার জন্য। বিভিন্ন ক্যান্সারের মধ্যে ফুসফুস ক্যান্সার অন্যতম। ফুসফুস ক্যান্সারের লক্ষণগুলো শুরুতে নির্ণয় করা সম্ভব হয় না। প্রায় ৪০% রোগীদের ফুসফুস ক্যান্সার শেষ পর্যায়ে গিয়ে ধরা পড়ে। খুব সাধারণ কিছু লক্ষণ হতে পারে ফুসফুস ক্যান্সারের কারণ। তাই ছোটখাটো লক্ষণগুলো অবহেলা না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

১। কাশি

যেকোন সময় যেকোন মানুষ কাশি দ্বারা আক্রান্ত হতে পারেন। কিন্তু এই কাশি যদি এক থেকে দুই সপ্তাহ স্থায়ী হয়, তবে দেরী না করে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

২। শ্বাসকষ্ট বা নিঃশ্বাসে স্বল্পতা

ফুসফুস ক্যান্সারে আরেকটি অন্যতম লক্ষণ শ্বাসকষ্ট। একটু হাঁটলে আপনার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে যায়? কিংবা সিঁড়ি বেয়ে উঠে শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে? তবে এটিকে অবহেলা করবেন না।ক্যন্সার আপনার শ্বাসনালীতে বাধাগ্রস্ত করে, যার কারণে আপনার শ্বাস নিতে কষ্ট হয়ে থাকে।

৩। শরীরের বিভিন্ন অংশ ব্যথা করা

শরীরের বিভিন্ন অংশ যেমন ঘাড়, পিঠ, বুক, বাহু ব্যথা হতে পারে। শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যার কারণে এটি হয়ে থাকে। শতকরা ৫০ ভাগ মানুষের ফুসফুস ক্যান্সার ধরা পড়ে বুক এবং কাঁধের ব্যথা নির্ণয়ের মাধ্যমে। কাশির সময় এই ব্যথা বেশি হয়ে থাকে।

৪। ওজন হ্রাস

হঠাৎ করে প্রায় ১০ পাউন্ড বা তার বেশি ওজন কমে যাওয়াও হতে পারে ফুসফুস ক্যান্সারের লক্ষণ। ডায়েট বা ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমে যাওয়া যেকোন বড় ক্যান্সারের লক্ষণ।  ক্যান্সারের কোষ খাবারে শক্তি সব শুষে নিয়ে  এবং অপ্রত্যাশিতভাবে ওজন কমিয়ে দিয়ে থাকে।

৫। নিউমোনিয়া বা ব্রঙ্কাইটিস

ঘন ঘন নিউমোনিয়া বা ব্রঙ্কাইটিস আক্রান্ত হওয়া রোগীদের ফুসফুস ক্যান্সার হওয়ার বেশি সম্ভাবনা থাকে। অনেক সময় টিউমার শ্বাসনালীর কাছে অবস্থান করে যার ফলে নিউমোনিয়া বা ব্রঙ্কাইটিস আক্রান্ত হওয়ার রোগীদের ফুসফুস ক্যান্সার দেখা দিয়ে থাকে। আপনি যদি ঘন ঘন নিউমোনিয়া বা ব্রঙ্কাইটিস ভুগে থাকেন, তবে অতি সত্বর চিকিৎসকের পরামর্শ করুন।

৬। মাথাব্যথা

অনেক সময় টিউমার রক্তনালীর (যা হৃদয় থেকে সারা শরীরে রক্ত সরবরাহ করে থাকে) উপর চাপ সৃষ্টি করে যার কারণে তীব্র মাথা ব্যথা দেখা দেয়। সব ধরণের মাথা ব্যথা ফুসফুস ক্যান্সারের লক্ষণ নয়। তবে ঘন ঘন অতিরিক্ত মাথা ব্যথা অবহেলা করবেন না।

৭। কন্ঠস্বর পরিবর্তন

কাশির কারণে আপনার কন্ঠস্বর পরিবর্তন হয়ে যেতে পারে। কর্কশ, খসখসে হয়ে যেতে পারে আপনার কণ্ঠস্বর। যদি দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে কন্ঠস্বরের পরিবর্তন থেকে যায়, তবে অব্যশই দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করুন।

৮। খুসখুসে কাশি

শ্বাসনালী বাধাগ্রস্ত হয়ে পড়লে খুসখুসে কাশি দেখা দেয়। এই খুসখুসে কাশিও হতে পারে ফুসফুস ক্যান্সারের প্রথম লক্ষণ।আপনি যদি হাঁপানির রোগী না হন, তবে এই লক্ষণকে অবহেলা করবেন না।

ফুসফুস ক্যান্সারের অন্যতম এবং প্রধান কারণ হল ধূমপান। ধূমপান ত্যাগ করুন, সুস্থ থাকুন।

সোর্স প্রিয়.কম

Advertisements

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: